বিশ্ব ব্যাংক পদ্মা সেতুতে দুর্নীতির সুষ্পষ্ট প্রমান দিয়েছে

পদ্মা সেতু নিয়ে দুদকে বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন

১০% ঘুষ চান মন্ত্রী-সচিব

অনিকা ফারজানা | তারিখ: ২০-০৬-২০১২

পদ্মা সেতু প্রকল্পে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের জন্য বরাদ্দ ছিল চার কোটি ৭০ লাখ ডলার। পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের কাজ পাইয়ে দেওয়ার জন্য কানাডাভিত্তিক প্রতিষ্ঠান এসএনসি-লাভালিনের কাছে ১০ শতাংশ অর্থ কমিশন চেয়েছিলেন যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ তিনজন। তাঁরা হলেন: সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন, সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা এবং পদ্মা সেতুর সাবেক প্রকল্প পরিচালক রফিকুল ইসলাম। তাঁদের প্রতিনিধিরা এই অর্থ কমিশন হিসেবে চান।

পদ্মায় দুর্নীতি নিয়ে হচ্ছেটা কি?

অর্থের অবৈধ লেনদেনের জন্য গ্রেপ্তার হওয়া এসএনসি-লাভালিনের সাবেক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পিয়েরে দুহাইমের কাছ থেকে এই তথ্য পেয়েছে কানাডার পুলিশ। আর বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে এই তথ্য পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। প্রতিবেদনে রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালীদের সম্পৃক্ততার তথ্যও রয়েছে।
দুর্নীতির এই সুনির্দিষ্ট তথ্য পেয়ে নতুন করে আবার তদন্ত শুরু করেছে দুদক। সম্প্রতি বিশ্বব্যাংক সরকারের কাছে একটি চিঠি দিয়ে পদ্মা সেতুর দুর্নীতি নিয়ে একটি উচ্চপর্যায়ের কমিটি গঠন করার আহ্বান জানায়। সরকার নতুন কোনো কমিটি গঠন না করলেও দুদকই নতুন করে তদন্ত শুরু করেছে। এর অংশ হিসেবে ১৪ জুন দুদক সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। আর গতকাল মঙ্গলবার জিজ্ঞাসাবাদ করেছে জাতীয় সংসদের হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটনের ভাই নিক্সন চৌধুরীকে। এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতে দুদক বলেছিল, তারা পদ্মা সেতু প্রকল্পে কোনো দুর্নীতি খুঁজে পায়নি।
সূত্র জানায়, মালয়েশিয়ার সঙ্গে সমঝোতা সই করলেও সরকার এখন বিশ্বব্যাংকসহ দাতাদের ঋণেই পদ্মা সেতু প্রকল্পের বাস্তবায়ন চায়। এরই অংশ হিসেবে দুদক তদন্ত করছে বলে জানা গেছে। এ নিয়ে দুদক তথ্য চাইলে বিশ্বব্যাংকের পক্ষ থেকে একটি প্রতিবেদন দেওয়া হয় সরকারকে। ওই প্রতিবেদন থেকেই দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট অভিযোগ জানতে পারে দুদক। প্রতিবেদনে সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন, তাঁর পরামর্শক প্রতিষ্ঠান সাকো ইন্টারন্যাশনালের সংশ্লিষ্টতা এবং সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা ও প্রকল্প পরিচালক রফিকুল ইসলামের পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে তথ্য রয়েছে বলে দুদক সূত্র জানায়।
সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী দেশের বাইরে থাকায় তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। মোশাররাফ হোসাইন ভূইয়া বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীন বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান। তাকেও পাওয়া যায়নি।
কমিশনের হাতে বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন রয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন দুদকের চেয়ারম্যান গোলাম রহমান। গতকাল প্রথম আলোকে তিনি বলেন, ‘কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে বাংলাদেশে আসা বিশ্বব্যাংকের ওই প্রতিবেদনে পদ্মা সেতু নির্মাণে পরামর্শক নিয়োগের বিষয়ে বেশ কিছু অসংগতির তথ্য রয়েছে। সেগুলো যাচাই-বাছাই করে অনুসন্ধানের পরিধি বাড়িয়েছে দুদকের তদন্ত দল।’
নাম না প্রকাশের শর্তে দুদকের তদন্ত দলের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘এসএনসি-লাভালিনের কাছে ঘুষ চাওয়ার প্রমাণ পেয়েছে কানাডীয় তদন্ত দল। কিন্তু কানাডার আইন আর বাংলাদেশের আইনের প্রেক্ষাপট এক নয়। কানাডার প্রেক্ষাপটে ঘুষ লেনদেনের চেয়ে এ বিষয়ে কথা বলাই অপরাধ। কিন্তু বাংলাদেশে ঘুষ লেনদেনের বিষয়টি প্রমাণিত হলে তা পরে অপরাধ হিসেবে গণ্য হয়।’ ফলে দুই দেশের আইনের পার্থক্যে ও সংস্কৃতি পার্থক্যের কারণে প্রতিবেদনের হেরফের হতে পারে বলে জানান তিনি।
সূত্র জানায়, পদ্মা সেতুর পরামর্শক নিয়োগের ক্ষেত্রে মূল্যায়ন কমিটি পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের নাম সুপারিশ করেছিল। প্রতিষ্ঠানগুলো হলো: এসএনসি-লাভালিন, যুক্তরাজ্যের হালক্রো গ্রুপ, নিউজিল্যান্ডের একম অ্যান্ড এ জেড এল, জাপানের ওরিয়েন্টাল কনসালট্যান্ট কোম্পানি লিমিটেড এবং যুক্তরাজ্য ও নেদারল্যান্ডের যৌথ বিনিয়োগের প্রতিষ্ঠান হাই পয়েন্ট রেন্ডাল। এর মধ্যে এসএনসি-লাভালিনকে সর্বনিম্ন দরদাতা হিসেবে বিবেচনায় নিয়ে অনুমোদনের জন্য বিশ্বব্যাংকের কাছে পাঠানো হয়েছিল। এর পরই এ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে এবং বিশ্বব্যাংক ১২০ কোটি ডলার সহায়তা স্থগিত করে দেয়। এ নিয়ে কানাডা পুলিশ এখনো তদন্ত করছে। আর তদন্তে পাওয়া প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাংক এসএনসি-লাভালিনকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে।
বিশ্বব্যাংক প্রতিবেদন অনুযায়ী, সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরী তাঁর আত্মীয় জিয়াউল হককে নিয়ে সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হাসানের সঙ্গে সেতু ভবনে পদ্মা সেতু-সম্পর্কিত এক বৈঠকে অংশ নেন। তাঁর ওই আত্মীয় হচ্ছেন বাংলাদেশে কানাডিয়ান এসএনসি-লাভালিনের স্থানীয় একজন প্রতিনিধি। তাঁর ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের ঠিকানাও দেওয়া রয়েছে প্রতিবেদনে। লালমাটিয়ার এ ব্লকের ৭/৪ নম্বর বাড়ি। প্রতিষ্ঠানের নাম ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড প্ল্যানিং কনসালট্যান্ট কোম্পানি লিমিটেড। দুদকের জিজ্ঞাসাবাসে তিনি ওই বৈঠকের কথা স্বীকার করেছেন। তবে এতে কোনো অর্থের লেনদেন হয়নি বলে তিনি দাবি করেন।
এ ছাড়া, জাতীয় সংসদের হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটনের ভাই নিক্সন চৌধুরীর সঙ্গে এসএনসি-লাভালিনের বাংলাদেশি কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেনের ঘনিষ্ঠতার বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে প্রতিবেদনে। কানাডা ও বাংলাদেশের যেসব হোটেলে তাঁদের নিয়মিত সাক্ষাৎ হতো তার ঠিকানা ও সময়সূচিও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। নিক্সন চৌধুরী পিতা মরহুম সাংসদ ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর রেখে যাওয়া পারিবারিক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান রিতা কনস্ট্রাকশন ও মহাখালীতে একটি সিএনজি ফিলিং স্টেশনের দেখাশোনা করেন। বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পদ্মা সেতুর দরপত্রে অংশগ্রহণ করার পরই উভয়ের মধ্যকার দেখা-সাক্ষাৎ শুরু হয়। এসব বৈঠকে সেতু বিভাগের সাবেক সচিব এবং প্রকল্প পরিচালকও উপস্থিত থাকতেন বলে বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে উল্লেখ রয়েছে।
সূত্র জানায়, বিশ্বব্যাংক দুর্নীতির অভিযোগ প্রথম তুলেছিল গত বছরের সেপ্টেম্বরে। সে সময়ে অর্থমন্ত্রীকে একটি চিঠি দিয়ে এই দুর্নীতির সঙ্গে সৈয়দ আবুল হোসেনের সম্পৃক্ততার কথা জানানো হয়। এরপর সরকার মন্ত্রী, সচিব ও প্রকল্প পরিচালককে অন্যত্র সরিয়ে দিলেও আর কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। সৈয়দ আবুল হোসেন এখন তথ্য ও যোগাযোগ-প্রযুক্তিমন্ত্রী। বিশ্বব্যাংক এর পর থেকে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলে সাহায্য স্থগিত করে রাখে। এরপর গত এপ্রিলে দুর্নীতির প্রমাণ দিয়ে আবার একটি চিঠি দেয় বিশ্বব্যাংক। তাতেও সরকার কোনো উদ্যোগ নেয়নি। সবশেষ চলতি মাসে আবার একটি চিঠি দেওয়ার পর তদন্ত শুরু করে দুদক।
নিক্সন চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদ: গতকাল সকাল সোয়া নয়টায় সেগুনবাগিচায় দুদকের কার্যালয়ে উপস্থিত হন নিক্সন চৌধুরী। ১১টা পর্যন্ত তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এরপর তিনি দ্রুত একটি গাড়িতে উঠে চলে যান।
পরে দুদকের চেয়ারম্যান গোলাম রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ‘পদ্মা সেতুর পরামর্শক নিয়োগ-প্রক্রিয়ায় অনিয়মের বিষয়ে বিশ্বব্যাংক কিছু তথ্য-উপাত্ত দুদককে দিয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিষয়টি নিয়ে জোরেশোরে অনুসন্ধানে নেমেছে দুদক। এই অনুসন্ধানের বিষয়ে এ মাসের শেষে বা আগামী মাসের প্রথম দিকে কানাডীয় পুলিশের কাছ থেকে বেশ কিছু তথ্য-প্রমাণ পাবে দুদক।
দুদকের চেয়ারম্যান বলেন, এসএনসি-লাভালিনের দুই কর্মকর্তাকে সম্প্রতি আটক করে তাঁদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিয়েছে কানাডা। দুদক ওই দুই ব্যক্তির বিষয়ে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছে। নিক্সন চৌধুরীকে জিজ্ঞাসাবাদ নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে দুদকের চেয়ারম্যান বলেন, এসএনসি-লাভালিনের সঙ্গে তাঁর সম্পৃক্ততার প্রমাণ পাওয়া গেছে। এ নিয়েই তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

 

Padma bridge bribe was ready for 6

Reveals investigation by Canadian police; ACC prepares to quiz them; ex-communications boss says, ‘I am a holy person’

The Daily Star June 21, 2012

The Canadian company SNC-Lavalin had offered at least six influential Bangladeshis, including former communications minister Syed Abul Hossain, huge bribes to obtain the consultant’s job in the Padma bridge project.

Royal Canadian Mounted Police (RCMP) in an investigation found proof to this end and has shared the information with the Anti-Corruption Commission (ACC), which is also conducting a probe on the issue, said ACC official sources.

The five others, whose names came up in the RCMP investigation, are: Abul Hasan Chowdhury, ex-state minister for foreign affairs, Mosharraf Hossain Bhuiyan, ex-secretary of the Bridges Division of the communications ministry, Rafiqul Islam ex-director of Padma Multipurpose Bridge project, Mujibur Rahman Chowdhury alias Nixon Chowdhury, civil contractor and younger brother of parliament whip Noor-E-Alam Chowdhury, and Ziaul Huq, managing director of Engineering and Planning Consultant Ltd (CEP), who represented SNC-Lavalin in the Padma bridge tender, said ACC sources.

The sources, however, did not disclose the amount of money that had been offered to the six.

An RCMP team may arrive in Dhaka on June 25 or July 3 to share further details and collect more information from the ACC, said Khondakar Muhammad Aminur Rahman, director general (Spl) of the ACC.

As part of the investigation, the ACC has already quizzed Abul Hasan Chowdhury and Nixon Chowdhury and summoned MD of CEP Ziaul Huq to appear at the ACC office on June 24.

It will also summon Syed Abul Hossain, Mosharraf Hossain Bhuiyan, Rafiqul Islam and Nurul Haque, chairman of Syed Abul Hossain’s company Sahco, soon.

The sources said Abul Hasan Chowdhury was quizzed as he was a close relative of Ziaul Huq and played a vital role in arranging meetings at the Bridges Division office for the appointment of the consulting firm.

Nixon Chowdhury was interrogated as he had close links with Ismail Hossain, an official of SNC-Lavalin, the sources added.

SNC-Lavalin submitted its bid to act as the owner’s engineer for the Bangladesh government to supervise the contractor responsible for Padma bridge construction.

Following allegations of irregularities, the World Bank last September suspended its $ 1.2 billion fund for the bridge and launched an investigation on its bidding process.

This year, the WB temporarily barred a unit of SNC-Lavalin from bidding in its new projects following an investigation into the Padma bridge project.

ACC Secretary Faizur Rahman Chowdhury yesterday said the ACC had launched two separate investigations on the Padma Bridge Project.

“One is on the construction of the bridge and the other on the appointment of a consultant firm,” he said, “In the first investigation, we did not find any proof in favour of the allegation. The second investigation is still on.”

Talking to The Daily Star, a cabinet member noted that due to Abul Hossain’s wrongdoings, the whole nation was being deprived of the Padma bridge.

SOME RCMP FINDINGS
The RCMP launched an investigation against SNC-Lavalin last October following a WB request. It raided the company’s office, seized all documents from there and arrested former chief executive Pierre Duhaime, Bangladeshi-born Canadian citizen Ismail Hossain and Indian-born Canadian citizen Ramesh.

ACC sources said the RCMP had claimed that they gleaned information and found proof of various irregularities regarding the consultant’s appointment for the bridge project by interrogating the three detainees.

Seeking anonymity, an ACC investigator of the case told The Daily Star that the seized SNC-Lavalin documents show that the company had readied itself to pay a huge amount of bribe to people who were helping it obtain the job. The payment was set to be made after the appointment.

ACC chief Ghulam Rahman yesterday at a briefing in his office said the anti-graft commission had received some information from the WB and RCMP on the case. The ACC was working on it, he added.

He denied having any information that ministers and officials had demanded money as bribes from the Canadian company.

Several other ACC officials, however, contradicted their chief, saying that the RCMP had obtained solid evidence of bribery.

I AM HOLY: ABUL HOSSAIN
Information and Communication Technology (ICT) Minister Syed Abul Hossain, also former communications minister, yesterday said, “I am a transparent and holy person. I have always done my job with efficiency, transparency and honesty.”

“I have not done anything wrong in my life. Everything published in some newspapers linking me with irregularities in the Padma bridge project is false, baseless and fabricated,” he claimed.

He said nothing unethical happened in the bridge project. “I did not even get any undue proposal regarding it,” said Abul Hossain.

The ex-communications minister claimed that all the agencies of the world, apart from the WB and ACC, could investigate the alleged corruption if they wanted but they would not find any proof of his involvement with any irregularities.

He said the ACC had not found his involvement in any scandal regarding the bridge project after a long and thorough investigation.

Abul Hossain also denied lobbying for SNC-Lavalin to have it obtain the contract.

MOSHARRAF’S REACTION
Mosharraf Hossain Bhuiyan, now the chairman of Bangladesh Economic Zone Authority, categorically rejected the allegation of demanding commission from SNC-Lavalin.

He said representatives of all the five bidders had met the former communications minister.

“Even ambassadors and diplomats of the bidders’ countries met the then minister to advocate for their bidders. Some also called over the phone to place their requests, but the ex-CEO of SNC Lavalin never came. I have never known him, let alone meet him,” he told The Daily Star.

Mosharraf said everyone had been told that a high-profile evaluation team was dealing with the matter. “There was no chance of interfering with their activities,” he said, adding that the World Bank should show the evidence, if it had any, of demanding commission from or meeting with the ex-CEO.

“I am sure the WB won’t be able to show that,” he said.

“When the WB alleged corruption in the Padma bridge project last year, we requested them several times to come and talk to us. But they only talked with the complainants. Usually, both sides should be consulted,” he said.

About the probe by Canadian police, he said, “We really don’t know what they are probing and against whom because the WB has never shared anything with us since it brought the corruption allegations.”

He said he had no idea whether the former CEO of SNC-Lavalin had been arrested in connection with his role in corruption in Bangladesh.

Mosharraf said nothing wrong would emerge from the investigation.