Jubo League leader withdraws case against ATN chief

The Daily Star June 28, 2012

The defamation case against ATN Bangla Chairman Mahfuzur Rahman was withdrawn on Thursday a day after it was filed against him for making ‘derogatory comments’ about the prime minister.

ATN chairman sued for saying PM ‘talkative’

Complainant of the case Emdadul Haque Emdad, a leader of Dhaka City unit of Jubo League, withdrew the case citing personal reasons.

He however did not elaborate what is the personal reason that forced him to withdraw the case.

 

অসুস্থতার কথা বলে বাদীর মামলা প্রত্যাহার

ঢাকা, জুন ২৮ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে এটিএন বাংলার চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমানের বিরুদ্ধে করা মানহানির মামলাটি প্রত্যাহার করে নিয়েছেন মামলার বাদী নিজেই।

এমদাদুল হক এমদাদ নামের এক যুবলীগ নেতা বুধবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। কিন্তু বৃহস্পতিবার এর ওপর আদেশের ধার্য দিনে তিনি মামলাটি তুলে নেওয়ার আবেদন করলে মহানগর হাকিম এরফান উল্লাহ তা মঞ্জুর করেন।

বাদীর আইনজীবী ইউনূস আলী বিশ্বাস বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বাদী অসুস্থ। তাই তিনি এ মামলা চালাতে পারবেন না বলে আদালতে আবেদন দিয়েছেন। বিচারক সেই আবেদন মঞ্জুর করেছেন।”

মামলা তুলে নেওয়ার পেছনে ‘অন্য কোনো’ কারণ নেই বলেও দাবি করেন এমদাদের আইনজীবী।

গত ৩০ মে লন্ডনে এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনির হত্যাকাণ্ড নিয়ে বিভিন্ন মন্তব্য করেন এটিএন বাংলা চেয়ারম্যান। এক পর্যায়ে তিনি সাংবাদিক দম্পতিকে ‘পরকীয়ার বলি’ বলেও উল্লেখ করেন। ওই মন্তব্যের পর সাংবাদিকসহ বিভিন্ন মহলে তীব্র সমালোচনা ও মাহফুজকে গ্রেপ্তারের দাবি ওঠে।

একুশে টেলিভিশনে সোমবার প্রচারিত নতুন আরেকটি ভিডিওতে মাহফুজকে বলতে দেখা যায়, “আরে, প্রাইম মিনিস্টার কতো না কথা বলেন। প্রাইম মিনিস্টারের বক্তৃতা শুনছেন না, ওইটাও বলছে, আমরা কি ড্রয়িংরুম পাহারা দেওয়ার দায়িত্ব নিছি? এইটা হচ্ছে, বেশি কথা বলতে বলতে বাচালের ফট করে একটা মিসটেক হয়ে যায় না, এ রকম একটা মিসটেক হয়ে গেছে।”

বুধবার মামলা করার পর এমদাদুল হক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেছিলেন, “আমি যুবলীগের মহানগর শাখার একজন নেতা। মাহফুজুর রহমান আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নেতার বিরুদ্ধে কটূক্তি করায় তার যেমন মানহানি হয়েছে, তেমনি আমারও হয়েছে।”

ওই বক্তব্যের কারণে মানহানির অভিযোগ এনে কুমিল্লায়ও মাহফুজের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছেন এক ছাত্রলীগ নেতা।