The death of a storyteller: Humayun Ahmed

Humayun Ahmed

By Sabir Mustafa BBC Bengali editor July 20, 2012

Humayun Ahmed, who has died of cancer aged 64, was not just Bangladesh’s best-selling author. He was idolised by an entire generation of young men and women who grew up in the 1980s and 1990s.

The irony is Ahmed probably never wanted to be a writer. He studied and taught chemistry at Dhaka University.

হুমায়ূন নিয়ে মূলধারায় ‘অতি সাংবাদিকতা’

মৃত হুমায়ূন আহমেদ এবং দৈনিক মানবজমিনের সাংবাদিক…

ইউটিউবের ভিডিও দেখে হুমায়ূনকে সবাই আস্তিক মানছেন কেন

Gultekin arrives in Dhaka 

নুহাশ পল্লীতে ইফতার মাহফিল-মিলাদ

হুমায়ূন নিয়ে মূলধারায় ‘অতি সাংবাদিকতা’

মৃত হুমায়ূন আহমেদ এবং দৈনিক মানবজমিনের সাংবাদিক…

‘আবার লিখুন হুমায়ূন আহমেদ’

হুমায়ূনকে নিয়ে সুমনের গানটি শুনতে ক্লিক করুন

Humayun laid in eternal rest

But once his first novel was published in 1972, he never looked back. From novels and short stories he went on to writing dramas for television and then directed films of his own stories.

Ahmed always dismissed suggestions that students who studied science subjects were not meant for the world of literature.

”How many students of English or Bangla literature go on to become writers?” he retorted during an interview given to the BBC Bengali service just a few months ago.

”I don’t think there is any relationship between what you study and what you actually become later on.”

Deadpan humour

In his novels Ahmed created characters – eccentric, comic, loveable – to which young readers readily related. Some characters became larger than life.

He introduced a kind of deadpan humour in his writing that was very rare in Bengali literature. He explored the ups and downs of middle-class urban life with a sharp eye for the funny side.

Continue reading the main story

“Start Quote

Humayun Ahmed’s death is an irreparable loss for the nation”

Prime Minister Sheikh Hasina

One of India’s top authors, Sunil Ganguly, described Ahmed as ”the most popular writer in the Bengali language for a century”.

Until the late 1970s, Indian writers such as Ganguly held sway in the Bangladesh book market.

But Ahmed almost single-handedly broke that stranglehold and breathed life into the country’s publishing industry.

While his novels captured the imagination of the youth, particularly students, the dramatisation of those stories on television introduced Ahmed to a much wider audience.

Bangladeshi cinema goers queue for tickets at a movie theatre in Dhaka on July 6, 2012.
Humayun Ahmed chronicled the ups and downs of middle-class urban life in Bangladesh

By the middle of the 1980s he was not only the country’s best-selling author, he was also the hottest property on television.

His fame crossed the border as audiences in the neighbouring Indian state of West Bengal hungrily tuned into Bangladeshi television to watch his dramas.

But he often got into trouble for his irreverence.

Islamic preachers were once furious when he created the character of an idiotic house servant called Kader who claimed to be from ”Syed family”.

In Bangladesh many people believe Syeds are descendants of the Prophet Muhammad.

In the same drama titled ”Bohubrihi”, he portrayed a young doctor as a love-struck simpleton. Many doctors, in all seriousness, issued statements of protests.

Baker Bhai’s demise

But perhaps Ahmed’s most enduring character was a lovable rogue called Baker Bhai. A useless layabout who hung around teashops, Baker was also the local do-gooder.

Because of his tendency to help out damsels in distress, Baker became a sensation on Bangladesh television.

But in the drama ”Kothao Keu Nei”, Baker was convicted – wrongly – of murder, which infuriated people all over the country.

Protests broke out everywhere, demonstrations were brought out.

Letters and petitions urged Ahmed not to kill off Baker Bhai. But Ahmed stuck to his storyline and Baker Bhai was hanged.

For years afterwards, special prayers were held in many localities to pray for the departed soul of this fictional character.

Ahmed himself was quite perturbed by this public agitation over Baker Bhai’s hanging.

”So many people are hanged for no good reason, so many people die by the roadside and there is hardly any public headache over these. Yet, here was a fictional character being hanged and the public are up in arms. I was quite taken aback by all this,” he told the BBC.

Unity

But Ahmed was not free from other controversies.

Nine years ago he divorced his wife after a marriage lasting three decades, and married a close friend of his second daughter.

Despite the public and private criticism that his marriage to a woman his daughter’s age generated, Ahmed’s popularity with young Bangladeshis remained unmatched until the end.

Indeed, in a rare display of unity, the country’s rival political leaders expressed identical sentiments upon hearing of his death.

“Humayun Ahmed’s death is an irreparable loss for the nation,” said Prime Minister Sheikh Hasina in a statement.

“His death creates a massive void in the world of Bengali literature and culture which cannot be filled soon,” said opposition leader Khaleda Zia.

The lights go outThe Daily Star

Humayun Ahmed (1948-2012)

Photo courtesy: Foisal Masum

Popular writer Humayun Ahmed is no more. Aged 64, he died while undergoing treatment for cancer at a New York hospital last night.

His wife Meher Afroz Shaon and younger brother Professor Muhammed Zafar Iqbal, a reputed writer himself, were present when he breathed his last at Manhattan’s Bellevue Hospital at around 11:20pm Bangladesh time.

The eldest among three brothers and two sisters, Humayun was also a renowned filmmaker and dramatist. He went to New York on September 14 last year after being diagnosed with colon cancer during a routine check-up in Singapore.

He had received chemotherapy in 12 cycles at Memorial Sloan-Kettering Cancer Centre in New York before he returned to Bangladesh on May 11 to spend time with friends and relatives for 20 days.

Back in New York, he underwent two surgeries last month. After the second surgery, he was infected with a virus unknown to the doctors, which spread through the body.

A pall of gloom descended soon after the news streamed into the country and across it.

A former associate professor of the chemistry department of Dhaka University, Humayun came into prominence after the publication of his first novel, Nondito Noroke, in 1974.

President Zillur Rahman, Prime Minister Sheikh Hasina and Leader of the Opposition Khaleda Zia have expressed deep shock at the death of Humayun.

In his condolence message, President Zillur Rahman said the creative works of Humayun Ahmed would remain immortal in Bengali fiction. The president prayed for the eternal peace of the departed soul and conveyed his sympathies to the bereaved family, reported BSS.

Prime Minister Sheikh Hasina said Humayun’s death was an irreparable loss to the nation. People will always remember him fondly, the prime minister’s special assistant (media) Mahbubul Hoque Shakil quoted her as saying last night.

BNP Chairperson Khaleda Zia prayed for the salvation of the departed soul and expressed her deep sympathies for the littérateur’s bereaved family members.

Humayun emerged as a powerful voice in Bangladesh’s literary world in the early 1970s, eventually becoming clearly the most popular writer of the country.

Nicknamed Kajol, the writer was born in Kutubpur village of Netrakona on November 13, 1948, to Fayzur Rahman Ahmed, a police officer, and Ayesha Fayzur. His father, who was also a writer, was murdered by the Pakistan occupation army and its local collaborators during the Liberation War in 1971.

Another brother of Humayun Ahmed, Ahsan Habib, is a painter and editor of Unmad, a cartoon magazine.

Humayun married Gultekin, granddaughter of Principal Ibrahim Khan, in 1973. The couple divorced in 2003, with the writer subsequently marrying television actress Shaon.

Humayun had his schooling in Sylhet, Comilla, Chittagong, Dinajpur and Bogra owing to his father’s postings in these towns. He passed the School Certificate examination as a student of Bogra Zilla School.

A few months ago, Humayun Ahmed was appointed special adviser to the Bangladesh permanent mission at the United Nations by the government.

He continued writing during his stay in New York for cancer treatment.

Humayun retired as a Dhaka University teacher in the mid-1990s to devote himself to writing and making films and television dramas.

His first film, “Aguner Parashmoni”, based on the Liberation War, won the National Film Award in eight categories, including Best Picture and Best Director.

Humayun won the Bangla Academy Award in 1981 and the Ekushey Padak in 1994. His first award was Lekhak Shibir Prize in 1973.

(Earlier report on Arts and Entertainment)

 

 

বিবিসি বাংলা

বাংলাদেশের সদ্য প্রয়াত লেখক হুমায়ূন আহমেদের দ্বিতীয় স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন সোশ্যাল মিডিয়ায় তীব্রভাবে সমালোচিত হচ্ছেন লাশ দাফন বিতর্কে তাঁর কথিত ভূমিকার জন্য।

সাত বছর আগে বিয়ে হলেও তাদের প্রেম, বিয়ে এবং এর পরিণামে হুমায়ূন আহমেদের আগের সংসার ভেঙ্গে যাওয়ার বিষয়টি নিয়ে এখন নতুন করে আলোচনার ঝড় উঠেছে ফেসবুকে, বিভিন্ন ব্লগে এবং অন্যান্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে।

কিন্তু যেভাবে মেহের আফরোজ শাওন সোশ্যাল মিডিয়ায় কথিত হুমায়ূন ভক্তদের সমালোচনার টার্গেটে পরিণত হয়েছেন, এবং যে ভাষায় তাঁর এই সমালোচনা করা হচ্ছে—সেটা কতোটা ন্যায্য এবং যৌক্তিক সে প্রশ্ন উঠেছে।

“ভাবতে আশ্চর্য লাগছে, যারা নিজেকে হুমায়ূনের বিশাল ভক্ত হিসেবে দাবি করছে, আজ তারাই হুমায়ূনের সবচেয়ে প্রিয় মানুষটাকে নিয়ে কুৎসিততম মন্তব্য করে যাচ্ছে। শাওন মিথ্যা না সত্য বলছে, সে অভিনেত্রী না ভালোমানুষ, তাকে ব্যক্তিগতভাবে না জেনে, না চিনে মন্তব্য করার অধিকার আমাদের কে দিয়েছে”—ফেসবুকে তাঁর স্ট্যাটাসে মুনমুন শারমিন শামস নামের একজন এভাবেই তাঁর ক্রুদ্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

পারিবারিক মূল্যবোধ

হুমায়ূন আহমেদ তাঁর বেশিরভাগ গল্পে মধ্যবিত্তের পারিবারিক মূল্যবোধেরই জয়গান গেয়েছেন

হুমায়ূন আহমেদ মূলত লিখেছেন বাংলাদেশের নাগরিক মধ্যবিত্ত এবং নিম্ন মধ্যবিত্তের জীবন নিয়ে। নিজের লেখায় যৌনতার খোলামেলা বর্ণনা তিনি সচেতনভাবে এড়িয়ে গেছেন, এবং তাঁর অনেক গল্পেই শেষ পর্যন্ত মধ্যবিত্তের পারিবারিক মূল্যবোধেরই জয় দেখানো হয়েছে।

কিন্তু এই জনপ্রিয় লেখক নিজেই যখন প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে তিরিশ বছরের সংসার ভেঙ্গে মেয়ের বান্ধবী মেহের আফরোজ শাওনকে বিয়ে করেন, তখন স্তম্ভিত হয়ে পড়েছিলেন তাঁর ভক্তরাও।

“মেহের আফরোজ শাওনকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর এই প্রবণতা খুবই হতাশাজনক। এটা খুবই অবমাননাকর” — ফাহমিদুল হক, শিক্ষক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

কিন্তু সেই বিতর্কও এক সময় থিতিয়ে এসেছিল। নিজের লেখালেখি, টেলিভিশন নাটক এবং চলচ্চিত্রের মাধ্যমে হুমায়ূন আহমেদ তার ভক্তদের মাতিয়ে রেখেছেন।

কিন্তু মৃত্যুর পর জনপ্রিয় এই লেখকের সাহিত্য কীর্তির মূল্যায়নের চাইতে তাঁর ব্যক্তিগত এবং পারিবারিক জীবনই গণমাধ্যমে এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশি আলোচিত হচ্ছে।

কোথায় হুমায়ূন আহমেদকে দাফন করা হবে তা নিয়ে যেভাবে পরিবারের সদস্যরা প্রকাশ্য মতবিরোধে জড়িয়ে পড়েন, তা যে এই বিতর্ককে নতুন করে উস্কে দিয়েছে তাতে কোন সন্দেহ নেই।

‘নারী সবসময় ভিকটিম’

প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে হুমায়ূন আহমেদের সংসার ভাঙ্গার জন্য অনেকে দূষছেন মেহের আফরোজ শাওনকে। কোথায় হুমায়ূন আহমেদকে দাফন করা হবে, সেই দ্বন্দ্বে শেষ পর্যন্ত শাওন যেভাবে জয়ী হন—সেটাকেও লেখকের উত্তরাধিকার কব্জা করার প্রয়াস হিসেবে দেখেছেন অনেকে।

“একটা মেয়ে ঘর বাঁধলেও মুশকিল, না বাঁধলেও মুশকিল। ঘর টেকাতে না পারলে তার দায়ও মেয়েদের ওপরই আসে। আমাদের দেশে নারী সবসময়েই ভিকটিম” — সমাজবিজ্ঞানী মাহবুবা নাসরিন

কিন্তু মেহের আফরোজ শাওনের ওপর এই আক্রমণের মধ্যে সমাজের সনাতনী পুরুষতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গীরই প্রকাশ ঘটেছে বলে মনে করছেন অনেকে।

“ফেসবুকে এবং ব্লগে যে ভাষায় মেহের আফরোজ শাওনের সমালোচনা করা হচ্ছে তাতে হুমায়ূন আহমেদের দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে তাকে অবমাননা করার একটা চেষ্টা খুবই স্পষ্ট”, বলছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক ফাহমিদুল হক।

“অনেকে আবেগের জায়গা থেকে এমন কিছু কথা বলছেন, লিখছেন যা খুবই অনভিপ্রেত। বিশেষ করে এখানে শাওনকে ডেমোনাইজ করার একটা চেষ্টা চলছে। এমনকি হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুর জন্যও তাকে দায়ী করে নানা ইঙ্গিতপূর্ণ কথা বলা হচ্ছে। মেহের আফরোজ শাওনকে কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর এই প্রবণতা খুবই হতাশাজনক। এটা খুবই অবমাননাকর।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞানের অধ্যাপক মাহবুবা নাসরিন বলেন, এ ধরণের পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের সমাজে সবসময় নারীকেই দোষারোপ করার একটা প্রবণতা দেখা যায়।

“একজন পুরুষের সম্পৃক্ততা না থাকলে একজন নারী তার জীবনে জড়িয়ে যায় না। কিন্তু বিষয়টাকে আমরা সেভাবে দেখি না। একটা মেয়ে ঘর বাঁধলেও মুশকিল, না বাঁধলেও মুশকিল। ঘর টেকাতে না পারলে তার দায়ও মেয়েদের ওপরই আসে। আমাদের দেশে নারী সবসময়েই ভিকটিম।”

মাহবুবা নাসরীন বলেন, হুমায়ূন আহমেদের সঙ্গে যখন বিয়ে হয়, তখন শাওন তো বয়সে অনেক ছোট ছিলেন। কিন্তু হুমায়ূন আহমেদ তো অনেক ম্যাচিউরড অবস্থা থেকে এই কাজটা করেছেন। কিন্তু কেউ তো হুমায়ূন আহমেদকে ইঙ্গিত করে কিছু বলছেন না। ইঙ্গিত করা হচ্ছে তাঁর স্ত্রী শাওনের প্রতি।”