ACC to work with World Bank on Padma bridge corruption

ACC Chairman Ghulam Rahman

Anti-Corruption Commission (ACC) on Wednesday agreed with the proposal of the World Bank (WB) of forming a panel to ensure a fair and transparent investigation into alleged graft in the Padma bridge project.

Apart from the formation of a three-member panel comprising international experts, the government is also willing to sign a memorandum of understanding (Mou) with the WB, ACC Chairman Ghulam Rahman said at a press briefing at his office.

Govt ready for joint probe with WB

পদ্মা সেতু: দুর্নীতি তদন্তে হবে বিশেষ প্যানেল

He said, “The commission has agreed with the WB’s proposal to ensure a complete, transparent and fair investigation. The government and the World Bank will sign a MoU in this regard.”

“Discussions took place between the ACC and WB regarding the enquiry and investigation into the corruption in the Padma bridge project. To associate the ACC in the investigation, the WB proposed to form a three-member panel comprising investigation and prosecution experts”, the ACC Chairman said.

The WB in a statement on Friday alleged the graft watchdog was not sincere in investigating the alleged corruption in the Padma bridge project and the commission’s response was not satisfactory in this regard.

Ghulam Rahman said the ACC will give the panel full access to all files, materials, documents and other information gathered by the ACC’ s enquiry team.

Replying to a question, Ghulam Rahman said as per the information and evidence gathered by the ACC investigation team, no allegation of corruption has been established in the Padma bridge project, and if someone provides evidence of corruption, the commission will investigate that further.

In response to another query, he said the panel members will quiz former communications minister Syed Abul Hossain, if necessary.

 

ঢাকা, জুলাই ২৫ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতি তদন্তের জন্য তিন সদস্যের একটি বিশেষ প্যানেল গঠনে করা হবে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশন চেয়ারম্যান গোলাম রহমান।

বুধবার দুর্নীতি দমন কমিশন কার্যালয়ে (দুদক) এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ তথ্য জানান।

গোলাম রহমান বলেন, “পদ্মা সেতু দুর্নীতির তদন্তে বিশেষজ্ঞ তিন জনের সমন্বয়ে একটি বিশেষ প্যানেল গঠন হবে। এই প্যানেল দুদকের সঙ্গে কাজ করবে।”

প্রাকযোগ্যতা নির্বাচন এবং পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় প্রকল্প পদ্মা সেতুতে প্রতিশ্রুত ঋণচুক্তি স্থগিত করে বিশ্ব ব্যাংক।

এছাড়া প্রকল্পে দুর্নীতির তদন্তের জন্য যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনসহ সংশ্লিষ্ট সচিব ও কর্মকর্তাদের অপসারণ এবং দেশীয় ও আন্তর্জাতিক তদন্তের শর্তারোপ করে আন্তর্জাতিক ঋণদাতা এই সংস্থাটি।

তদন্তের ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাঙ্কের শর্ত ছিল অভ্যন্তরীন তদন্তের পাশাপাশি বিদেশি বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে একটি টিম গঠন এবং তদন্ত সম্পর্কিত তথ্য ওই টিমের সঙ্গে বিনিময় করা।

কিন্তু সরকার বিশ্বব্যাঙ্কের পরিপূর্ণভাবে পালন করেনি অভিযোগে গত ২৯ জুন ঋণচুক্তি বাতিল করে বিশ্ব ব্যাংক। এর এক মাসের মধ্যে গত ২৩ জুলাই মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন সাবেক যোগাযোগ এবং বর্তমান তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন।

দুর্নীতির অভিযোগ উত্থাপনের পর থেকে দুদক একক ভাবে তদন্ত কাজ পরিচালনা করে এলেও বুধবার সংস্থটির চেয়ারম্যান গোলাম রহমান সাংবাদিকদের বললেন , “কমিশন তথ্য বিনিময়ে সম্মত রয়েছে।”