Humayun Ahmed’s Ghetu Putro Kamola strikes Dhaka movie theatres

প্রথম আলো অনলাইন প্রতিবেদক | তারিখ: ০৭-০৯-২০১২

সদ্য প্রয়াত জননন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের শেষ চলচ্চিত্র ‘ঘেটুপুত্র কমলা’ মুক্তির প্রথম দিনই বাজিমাত করেছে। হুমায়ূন-ভক্তদের পাশাপাশি চলচ্চিত্রপ্রেমীদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা এ চলচ্চিত্রটি আজ শুক্রবার রাজধানী ঢাকার স্টার সিনেপ্লেক্স ও বলাকা সিনেওয়ার্ল্ডের দুটি প্রেক্ষাগৃহে একযোগে মুক্তি পেয়েছে। ছুটির দিনে সকাল থেকে প্রেক্ষাগৃহে ছিল উপচে পড়া ভিড়। অনেককেই ফিরে যেতে হয়েছে টিকিট না পেয়ে।

Ghetu Putro Kamola

বলাকা সিনেওয়ার্ল্ড প্রেক্ষাগৃহের ব্যবস্থাপক জয় প্রথম আলো ডটকমকে আজ বিকেলে বলেন, ‘আমাদের দুটি প্রেক্ষাগৃহে “ঘেটুপুত্র কমলা” মুক্তি দেওয়া হয়েছে। প্রথম থেকেই আমাদের প্রত্যাশা ছিল ছবিটি ভালো ব্যবসা করবে। কিন্তু এটা যে আমাদের প্রত্যাশার চেয়ে বেশি হবে, সেটা ধারণায় ছিল না।’

জয় এ-ও বলেন, ‘আমাদের দুটি প্রেক্ষাগৃহের আসনসংখ্যা যথাক্রমে এক হাজার ৭৫ ও ২৮০টি করে। সকাল সাড়ে ১০টা ও বেলা সাড়ে তিনটার দুটি শোতে প্রেক্ষাগৃহে কোনো আসন খালি ছিল না। সন্ধ্যার শোরও সব টিকিট অগ্রিম বিক্রি হয়ে গেছে। এমনকি আগামীকাল শনিবারেরও বেশ কয়েকটি শোর অগ্রিম টিকিটও বিক্রি করতে হচ্ছে। সব মিলিয়ে অনেক দিন পর প্রেক্ষাগৃহে চলচ্চিত্রপ্রেমী দর্শকদের একটা ঢল নেমেছে বলা যায়।’

বলাকা সিনেওয়ার্ল্ডের মতো একই অবস্থা স্টার সিনেপ্লেক্সেরও। এই প্রেক্ষাগৃহেও সকাল থেকে এখন পর্যন্ত প্রতিটি শো ছিল হাউসফুল। সন্ধ্যার শোরও কোনো টিকিট নেই বলে জানান স্টার সিনেপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ। এখানেও অনেকে টিকিট না পেয়ে সিনেমা দেখতে না পেরে মন খারাপ করে ফিরে যাচ্ছেন। তবে অগ্রিম টিকিট সংগ্রহ করতে পেরে কষ্টটা কিছুটা লাঘব হচ্ছে বলে তাঁদের অভিমত।

ইমপ্রেস টেলিফিল্মের প্রযোজনায় নন্দিত চলচ্চিত্রনির্মাতা হুমায়ূন আহমেদের চলচ্চিত্র ‘ঘেটুপুত্র কমলা’ পর্যায়ক্রমে সারা দেশে মুক্তি পাবে। চলচ্চিত্রটির কাহিনি, সংলাপ, চিত্রনাট্য রচনা ও পরিচালনা করেছেন হুমায়ূন আহমেদ।

প্রায় দেড় শ বছর আগে হবিগঞ্জ জেলার জলসুখা গ্রামের এক বৈষ্ণব আখড়ায় ঘেটুগান নামের নতুন সংগীতধারা সৃষ্টি হয়েছিল। মেয়ের পোশাক পরে কিছু রূপবান কিশোর নাচ-গান করত। এদের নামই ঘেটু। গান হতো প্রচলিত সুরে, যেখানে উচ্চাঙ্গসংগীতের প্রভাব ছিল স্পষ্ট। অতি জনপ্রিয় এই সংগীতধারায় নারীবেশী কিশোরদের উপস্থিতির কারণেই এর মধ্যে অশ্লীলতা ঢুকে পড়ে। বিত্তবানেরা এসব কিশোরকে যৌন-সঙ্গী হিসেবে পাওয়ার জন্য লালায়িত হতে শুরু করেন। এ কাহিনি নিয়ে নন্দিত ঔপন্যাসিক ও চলচ্চিত্রনির্মাতা হুমায়ূন আহমেদ নির্মাণ করেছেন এই পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র। নির্মাতা নেই, কিন্তু রয়ে গেছে তাঁর সৃষ্টি।

হুমায়ূন আহমেদ নিউইয়র্কে চিকিত্সারত অবস্থায় শেষবারের মতো দেশে এসেছিলেন গত মে মাসে। তখন তিনি তাঁর শুভানুধ্যায়ী, বন্ধুবান্ধব ও সহকর্মীদের নিয়ে স্টার সিনেপ্লেক্সে চলচ্চিত্রটির বিশেষ প্রদর্শনী উপভোগ করেছিলেন। এরপর গত বুধবার বলাকা সিনেওয়ার্ল্ডে এক প্রিমিয়ার শোর আয়োজন করা হয়েছিল।

‘ঘেটুপুত্র কমলা’ ছবির অভিনয়শিল্পীরা হলেন: তারিক আনাম খান, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, মুনমুন আহমেদ, মাসুদ আখন্দ, তমালিকা কর্মকার, শামিমা নাজমিন, প্রাণ রায়, বাউলশিল্পী কুদ্দুস বয়াতি ও তাঁর দল, আইনুন নাহার, আবদুল্লাহ রানা, রফিকুল ইসলাম প্রমুখ। ‘ঘেটুপুত্র কমলার’ কেন্দ্রীয় চরিত্রের অভিনেতা শিশুশিল্পী মামুন।

Photos of Humayun Ahmed-Gultekin Khan-Meher Afroz Shaon-Ninit-Nishat-Nuhash-Shila-Bipasha-Nova

Humayun Ahmed’s chehlam observed in Nuhash Palli

Gultekin Khan, family at Nuhash Palli (Humayun Ahmed’s grave)

Gultekin cries for Humayun, still!

Gultekin’s love for Humayun

Humayun Ahmed’s Fiction: Jalil Shaheb-er Petition (Mr Jalil’s Petition)

The storytelling of Humayun Ahmed, a reader’s view

No controversy over Humayun Ahmed, please: Fakhrul, Mahfuz Anam

Plaintiff withdraws murder case against Meher Afroz Shaon-Mazhar

 

A scene from the film

The vast lowlands in the eastern part of Bangladesh are truly enigmatic. What remain as dry land throughout the year, during monsoon these areas take a completely different look. This waterlogged state that approximately lasts for three to four months, limits mobility, thus initiating a dull state of inertia. As the proverb goes, “an idle brain is the workshop of devil”, this state of inertia initiates a strange practice in the name of recreation.

In Humayun Ahmed’s latest and last film, “Ghetu Putro Kamola”, one finds a detailed account of this strange way of life. Highlighting a cultural tradition that is now extinct — “Ghetu Gaan”, the film depicts the joys and sorrows of the inhabitants of this lowland. It is essentially a sketch of the landscape and lifestyle.

Perhaps the film became the most anticipated one in Bangladesh, in recent times, because of Ahmed’s sudden departure. Readers and audiences are hugely grateful to this remarkable storyteller for providing a detailed sketch of life in the lowlands in his numerous stories and this film.

Communal bliss, festivity, exuberance as well as dark and shocking social practices are brilliantly depicted in Ahmed’s writings; he did the same with his last project.

We have seen the mighty feudal lords in many of Ahmed’s writings and TV plays, films. We are familiar with their arrogance, their cruelty and their benevolence. Yet, when they come across as individuals, we can dissect their good and evil sides easily.

The landlord (played by Tariq Anam Khan) in “Ghetu Putro Kamola” is a helpless one.

Sometimes the landlord’s need for recreation turn into lust and the film narrates the tragic outcome of this lust. The victim, Kamola (Mamun), a young boy singing and dancing as a girl, who entertains the landlord, faces this tragedy.

We saw Ahmed’s successful depictions of landlords — portrayed by mighty actors such as Asaduzzaman Noor and Abul Hayat — before. The teaming up of another bold actor, Khan, and Ahmed could be considered the key to this film’s success.

There are representatives of conscience in the film — the big-headed but practically listless artist Shah Alam (Agun); the dance trainer of the Ghetu team (Pran Roy) and the imam of the mosque (Abdullah Rana).

Unlike his previous films such as “Aguner Paroshmoni”, “Srabon Megher Din” and “Amar Achhey Jol” which are adaptations of his literary works, Ahmed penned a brand new story for his latest film. The story is fascinating as his other works.

Some brilliant camera work, especially in the scene where Kamola is roaming around on the rooftop, playing with the landlord’s daughter, or the flashbacks, or the starting sequence — makes the film aesthetically enriched.

The cast also includes Tamalika Karmakar, Baul Abdul Kuddus Bayati and his troupe, Ani and Prapti. Shitalong Fakir’s song “Shua Urilo” has been used throughout the film as the background score, though the credits mention Ram Kanai Das as the composer. Some of Ahmed’s own compositions — such as “Jamunar Jol Dekhte Kalo” — have been sung by Fazlur Rahman Babu and Baul Shafi Mandal.

Mahfuzur Rahman Khan as director of photography, Salimullah as editor and Maqsud Jamil Mintu and SI Tutul as music directors have done well. Emon Saha directed the background music.

Produced by Impress Telefilm Ltd. and presented by Pran Jhalmuri, the film premiered at Balaka Cine World in Dhaka on September 5. The film will have its public release today, at Balaka and Star Cineplex in Dhaka.