‘আজ চুপ থেকে ভাবছেন আপনি বেঁচে গেলেন? ভুল!’

By সিডাটিভ হিপনোটিক্স

অভিজিৎ রায়কে হত্যা করা হয়েছিলো, কারন নাস্তিকতা নিয়ে লেখালেখি। যুক্তি তর্ক দর্শন। অধিকাংশই চুপ ছিলো। ওয়াশিকুর বাবুকে মারা হয়েছে। তার কথা ভুলেই গেছি। আজ ব্লগার বিজয় দাসকে কুপিয়ে মারা হলো। আবার চুপচাপ দেখছে সবাই। কারন ছিলো মুক্তমনায় লেখালেখি, এডমিন হওয়া। মোটামুটি লিস্ট নিয়ে এগোচ্ছে হত্যাকারীরা।

আগামীকাল আমাকে মারা হবে। তাদের হত্যার প্রতিবাদের জন্য। পরশু খুন হবেন কোন কবি, কোন কবিতার জন্য। তারপর কোন ঔপন্যাসিক, কোন দূর্বার উপন্যাসের জন্য। তারপর চাকুরীজীবি মহিলাটিকে পাথর মারা হবে, ভীড়ের ভেতর পুরুষদের সাথে বাসে ওঠার জন্য। পাথর মারা হবে স্কুলের মেয়েটিকে, স্কুলে যাওয়ার জন্য।

নববর্ষ থাকবে না, একুশে ফেব্রুয়ারী থাকবে না, রবী ঠাকুরের জন্মদিন থাকবে না। শহীদ মিনার গুড়ানো হবে। স্মৃতিসৌধ ভাঙা হবে। গভীর রাতে কেউ জীবনানন্দের কবিতা পড়বে না, নিষিদ্ধ হবে কাফকা, বোদলেয়ার। ফিল্ম মেকিং এর ভূত যুবকের কাধে থেকে নেমে যাবে, আজকের তারকারা প্রবাসী হবে, ডিরেক্টররা নিভৃতে যাবে। আপনার শাস্তি হবে ঐ সাধের সেলফির জন্য।

এগুলো হবে, শুধু মাত্র চুপ করে অন্যায় সহ্য করার জন্য। এগুলো হবে আর সেদিনও সবাই চুপ করেই থাকবে। আজ কথা গুলো তেতো লাগবে, অবাস্তব লাগবে।

যদি মনে করে থাকেন, অভিজিৎ কিংবা বিজয় দাসের মৃত্যুর কোন প্রভাব আপনাদের সাধারন জীবনে পড়বে না, কারন আপনারা এগুলোতে জড়িত না, তবে অনেক বড় ভুল করলেন আজ। তারা একটা রক্ত মাংসের শরীরকে মারছে না, তারা একটা চিন্তা ধারাকে খুন করছে। আমার ভাববার অধিকারকে খুন করছে।

আজ চুপ থেকে ভাবছেন আপনি বেঁচে গেলেন, ভুল। কেউ বাঁচবো না। বাঁচলেও ওটাকে বাঁচা বলবে না।