পর্নোগ্রাফির বাস্তবতা

By ইস্ক্রা

পর্নোগ্রাফি আমাদেরকে তথাকথিত “বেশ্যা” এর নয়া ডেফিনিশন এবং ডাইমেনশন দেখিয়েছে। নতুন করে চিনিয়েছে “বাস্টি” এবং “ফেটিশ”। পর্নোগ্রাফির জনরা, সাব-জনরায় মা-বাপ থেকে স্কুল গার্ল, সেলস গার্ল, আর্মি থেকে আমলা কোনো নারী-ফেটিশই বাদ যায় নাই।

আমরা প্রতিদিন স্রেফ এই জ্ঞানার্জন করছি যে, রাস্তায় যেতে যেতে, অফিসে বসে বসে, বাড়িতে শুয়ে শুয়ে হঠাৎ করে অজানা অচেনা মানুষের সাথে যৌনতা শুরু করে দেওয়া যায়। এরচেয়েও ভয়াবহ হলো, নারী সে কর্পোরেট চাকুরে হোক, জজ হোক, ডাক্তার হোক বা আর যাই হোক না কেন, তার কতিপয় বিশেষ ভঙ্গিমাই তাকে বেশ্যায় রূপান্তর করতে যথেষ্ট। নো ম্যাটার হোয়াট শি উইয়ারস, ইট ইজ দ্য ইনটেনশন হুইচ ইজ ফোকাসড ইন ইচ পর্ন ফিল্ম। ওখানে বিকিনি আর আর্মির ইউনিফর্ম একাকার হয়ে যায়, একাকার হয়ে যায় মিনি স্কার্ট থেকে বোরকা। চরম কাল্পনিক রাজ্যের ওইসব নারীরা তাই জামা গায়েও যেমন, জামা ছাড়াও তেমন, বিশেষ পার্থক্য নাই।

সমস্যাটা হয়ে যায় বাস্তবতায় ফেরার পর। কোনো মেয়ে স্কুলগার্ল, কি কর্পোরেট চাকুরে, কি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী – ব্যাপার না, আমাদের ক্ষুরধার কল্পনাশক্তি তাকে ন্যাংটো করবেই। তার পোশাকের স্ফিত অংশ হয়ে উঠবে মোহনীয় স্তন। এর হাত থেকে বোরকাও বাদ যায় না, ট্রাস্ট মি!

কারণ, আমরা চুলের জেল থেকে গায়ের সেন্ট সব মেখেছি হট হওয়ার জন্য এবং হট করার জন্য। এরপর গাছের আম (স্লাইস জুস – আমসূত্র, ক্যাটরিনা) থেকে কুঁচকির চুল (ভিট-ক্যাটরিনা) পরিষ্কারকারী ক্রিম – সবখানেই লাগিয়েছি যৌনতা। ক্রমাগত “হটায়ন” প্রক্রিয়া আমাদের ঘরের মেয়ের চালচলনকে “হট দৃষ্টিতে দেখো” বলতে চেয়েছে। এখন আমাদের অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে, সামান্য ক্রিয়াপদ ও তাদের ধাতুও আমাদের যৌনাকাঙ্খা থেকে রেহাই পায় না। যদি বলি “চুষি” তাহলেও মুচকি হাসি, যদি বলি “লাগাই” তাহলে তো সিনেমা চলে কল্পরাজ্যে।

তথাকথিত উন্নত বিশ্ব নিজেরা পর্নোগ্রাফি ও পর্নোগ্রাফিক প্রোডাক্ট ছড়িয়ে দিচ্ছে সারাবিশ্বে। চাইল্ড পর্নোগ্রাফি নামক ভয়াবহ ব্যাপারটি ব্যাপকভাবে ছড়ানোর জন্য আপনি ধর্মকে দোষ দিবেন নাকি পশ্চিমাবিশ্বের পর্নোগ্রাফি মিডিয়াকে? অথচ, আজ এই বিশাল ইন্ডাস্ট্রির কথা আমরা যেন ভাবিই না। আমরা ভাবি কেবল ধর্ম আমাদের কি ক্ষতি করলো। ভেবে ভেবে ক্লান্ত হই এবং ক্লান্তি আনি। অথচ, চোখের সামনে সমস্যার গোড়া, দেখতে পাই না। অবশ্য, দেখতে না পাওয়াটা বিচিত্র নয়, নিজেরা কতোটা অবসেসড তাও তো ঠিকঠাক জানিনা।