‘আদিবাসী বলেই তাকে ধর্ষণ করলে বিচার হবেনা।’

বর্ষবরণের নারী নিপীড়নের ঘটনায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ছাত্র ইউনিয়নের স্মারকলিপি দিতে আমরা ৫জনের প্রতিনিধিদল গিয়েছিলাম। কথা প্রসঙ্গে আমি স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীকে যখন বললাম আদিবাসী নারী নির্যাতন তো নিত্য দিনকার ঘটনা। কয়টা ঘটনার বিচার আপনারা করেছেন।

তিনি হুট করে বলে বসলেন, আদিবাসীদের বিষয়টা ভিন্ন। তাদের ঐক্যের সমস্যা। তাকে থামিয়ে দিয়ে বললাম, আমি প্রশ্ন করলাম এক আর আপনি উত্তর দিলেন আরেক। গোঁজামিল দিচ্ছেন কেন? ব্যর্থতা স্বীকার করেন। স্বীকার করেন যে এই ঘটনাগুলো আপনারা প্রশ্রয় দিচ্ছেন। তিনি বললেন আরেকদিন এটা নিয়ে আলাপ করা যাবে।

আমি বললাম সব ঘটনাগুলোই একসাথে গাঁথা। আপনাদের নির্লিপ্ত দৃষ্টিভঙ্গির কারণেই নিপীড়ক উৎসাহ পাচ্ছে। অনেকে এখন বলছেন নারী নিপীড়ন ভয়ানক আকার ধারণ করেছে। আসলে সব সময়ই তা ভয়ানক ছিল। এটা নিত্যদিনকার ঘটনা। এখন কেবল তা আলোচনায় এসেছে। প্রায় প্রতিদিনের পত্রিকাতেই ছোট্ট করে নারী নির্যাতনের খবর আসে।আমরা হেডলাইন দেখেই অন্য আর একটি খবরে বুদ হয়ে থাকি। গারো মেয়েটিকে কেন ধর্ষণ করা হয়েছে?? কারণ হিসেবে বলা হয়েছে তিনি আদিবাসী।

আদিবাসী বলেই তাকে তুলে আনা হয়েছে। তাকে ধর্ষণ করলে বিচার হবেনা। লম্ফ জম্ফ কম হবে।পাহাড় তো জলজ্যান্ত উদাহরণ। আজ গারো সম্প্রদায়ের ছাত্র সংগঠন এর এক নেতা বলছিলেন আমরা নারীকে কতটা সম্মান করি তা নিশ্চয় আপনারা জানেন। দুঃখ লাগে দেশ স্বাধীন হলেও আমরা এখনো সম্মান পাইনি। প্রতি মুহূর্তে সংগ্রাম করতে হচ্ছে। যুদ্ধতো আমরাও করেছিলাম। ভেবে দেখলাম রুখে দাঁড়ানো ছাড়া কোন উপায় নেই। রাজপথেই ভরসা। জনগণের একতাবদ্ধ সংগ্রাম ছাড়া বিকল্প নেই। আসুন জোট বাঁধি।

পাহাড়ে কি সমতলে, লড়াই হবে সমান তালে।

By Lucky Akter