Tagged: militancy Toggle Comment Threads | Keyboard Shortcuts

  • probirbidhan 19:09 on August 1, 2015 Permalink |
    Tags: , Islamisation, militancy, radical Muslims,   

    Blogger killing probe draws flak from activists 

    Four secular Bangladeshi writers have been killed since November of 2014: Rajshahi University professor AKM Shafiul Islam, and writers Avijit Roy, Oyasiqur Rahman Babu and Ananta Bijoy Das.

    At least a dozen more have been killed and scores of others attacked or threatened with death for their progressive and secular views, since massive protests erupted in 2013 calling for Islamist parties to be banned. The protesters also demanded that war criminals including some Islamist politicians be hanged for war crimes committed in 1971. A war crimes court handed down a series of death sentences to a number of people including a few Islamist leaders later that year.

    All of the murdered bloggers or activists had one thing in common: they openly opposed Bangladesh’s increasingly unpopular largest Islamist party Jamaat-e-Islami, and similar communal Islamist organisations, who have been fighting a losing battle for a more conservative, religion-based legal regime in the country since 1971 when the country first won independence from Pakistan. In 2013, Bangladesh’s Supreme Court declared the Jamaat illegal, blocking it from contesting in the country’s elections.

    Law enforcement and the judiciary have failed to adequately investigate the recent killings, some of which have happened with apparent blessings from international militant groups like al-Qaeda.

    Bangladesh is a non-religious parliamentary democracy, which means there is no Sharia or blasphemy law. People who identify as atheists have the same rights as other citizens. However, under Section 295A of Bangladesh’s Penal Code (1860), any person who has a “deliberate” or “malicious” intention of “hurting religious sentiments” is liable to imprisonment. While Bangladesh’s constitution has recognised and protected the right to secularism since 2011, it also allows religion-based politics and identifies Islam as its state religion. Government inaction and police ineffectiveness have also given Islamist groups a certain amount of impunity.

    Several militant leaders and field-level workers were arrested in a crackdown recently, including an alleged leader of Al-Qaeda’s branch in the region. Al-Qaeda in South Asia has claimed responsibility for the murder of several secular bloggers in Bangladesh this year, including Mukto-Mona blog (free-thinker) founder Avijit Roy.

    Law enforcers have also identified new militant organizations that are campaigning against progressive cultural norms to justify the need for Islamic revolution in this state. But the cases of the bloggers and professor mentioned above have scarcely seen progress. Police last week claimed to have identified seven suspected killers of Avijit, saying that their photos had been verified by the wife of the slain blogger, but Mukto-Mona blog refuted the claim on Thursday.

    Global Voices contacted several secular bloggers and online activists to know their views regarding the recent killings, investigation process and possible future plan of the militant groups operating in the country. We received responses from four individuals. Several others refrained from making any comment out of fear of reprisal.

    Read the interviews on Global Voices

    Advertisements
     
  • probirbidhan 22:01 on May 31, 2015 Permalink |
    Tags: , militancy, ,   

    ধর্মের বিরুদ্ধে এত লেখালেখি করেন কেন? ধর্ম ছাড়া আর কোন বিষয় নাই? 

    জনৈক: আপনি ধর্মের বিরুদ্ধে এত লেখালেখি করেন কেন? ধর্ম ছাড়া আর কোন বিষয় নাই?

    আমি: কি নিয়ে লিখবো সে ব্যাপারে একটা লিষ্ট দেন, আপনার পছন্দমাফিক লিখতে পারি কিনা দেখি!

    জনৈক: এই যেমন ধরুন, দেশের দূর্নীতি, সন্ত্রাস, ধর্ষণ, শিক্ষা-ব্যাবস্থা, নারী অধিকার.. এসব বিষয় নিয়ে লিখতে পারেন।

    আমি: ভাল বলেছেন, আপনি তো দূর্নীতি দেখেন; আমি দেখি দূর্নীতির পিছনে ধর্মীয় কারন। আপনি শুধু সন্ত্রাস আর ধর্ষণ দেখেন, আমি দেখি ধর্ম কিভাবে এই ব্যাপারগুলোকে প্ররোচিত করে। আর ধর্মে নারী অধিকার বলতে কোন বিষয়ই নাই। নারীরা শস্যক্ষেত্র, স্বামীর সেবা করবে আর বাচ্চা জন্ম দেবে। নারীরা ঘরে থাকবে; যেন আপনার মোহর দিয়ে কেনা স্ত্রীকে বাজারে পরপুরুষেরা ধাক্কা দিতে না পারে।
    দেশের রাজনীতির দিকে তাকান, মদীনা সনদের কথা বলে মানুষকে বোকা বানানো হচ্ছে। দিনের পর দিন ধর্মের নামে মানুষ খুন হচ্ছে, তখনতো আপনি নিজে কিছু লেখেন না। অাপনার প্রোফাইলে গেলে শুধু নেত্রীর প্রসংশা আর দলীয় নেতাদের তোষামোদী করা পোষ্ট। কই আমি তো কোনদিন বলিনা, আপনি কোন বিষয়ে লিখবেন আর কোন বিষয়ে লিখবেন না। আমাকে নিয়ে আপনার এত মাথাব্যথা কেন? আমার লেখা পড়তে চান না, ইগনোর করেন, আনফলো করেন। তাও যদি আপনার সন্তুষ্টি না হয়, তাহলে আনফ্রেন্ড করেন, ব্লক করেন। তবু আমার ব্যাক্তিগত স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করতে আসবেন না। আমি আপনার দরজায় কড়া নেড়ে আমার লেখা পড়তে বাধ্য করছি না।
    আমার প্রোফাইলে আমি স্বাধীন। এত বছর বিদেশে থাকার পরও যদি এ শিক্ষাটা না হয়ে থাকে, তাহলে বুঝতে হবে আপনি মত প্রকাশের স্বাধীনতার মানে বোঝেন না। এমনকি নিজেও স্বাধীনভাবে মতপ্রকাশ করার মতো সাহস অর্জন করেন নাই।

    By Farzana Kabir Khan Snigdha

     
    • doolaavai 16:42 on January 14, 2016 Permalink | Log in to Reply

      one day the greatest religion of the world (so called) islam will fall like any other religions. and it will be fallen by the women. you may knew that in Indian women filed a case to make a law so that any muslim man can’t get more than one wife at a time, before it a Saudi Arabian woman wanted a license to drive a can, but she hasn’t got it. so write it down one day Islam will fall by the muslim woman, and it would be so shame full for 1500 years old legacy, I should tell heresy. so be ready for that shame full day.

    • doolaavai 16:45 on January 14, 2016 Permalink | Log in to Reply

      thank you for your brave endeavor. I hope you I mean all of women in Islam will be truly free from that nasty religious doctrine.

    • doolaavai 21:50 on February 2, 2016 Permalink | Log in to Reply

      actually I don’t like dirty debate, specially with a girl/woman who thinks herself as a “shosha khetro”, I feel pity for you! have really seen my profile, there is no political writings, let alone ‘chamchami’ , before making comments for any matter,you should research first, for your information you are not in my friend list, and I don’t want to be friend with people like you, you don’t have any dignity left in you, and you don’t have enough intellectual to properly understand my writings, it is out of your grasp. our islam is badly effected by idiots like you. I hope your future will be happy by being third or fourth wife of a muslin man, and be his ‘shosho khetro’, what a shame! last thing I want to say”Go FUCK YOURSELF,(pardon my language), if I really write about our religion it would be thousands of pages.
      “Jodi tumi pete chao behester punji, bibigon ke kine dao ‘beheshter kunji”—moksedul mumenin,
      and I am writing with a heavy heart, you just made me sad, not angry. I have stunned, when you say “mohor die kina wife….’ tahole manush-o kena becha hoy’ shame on you! all the religions of the world cannot omit slavery from the world, and failed, but our civilized people has stopped that shameful event,
      what I really want to tell, I can’t, because people like you, arrogant and stubborn, who don’t have proper intellect, will come with a ‘chapati’ (some kind of knife), and hacked me dead. you people did it before and do it again, because your thick skull won’t understand and definitely can’t answer with a pen, I hate humayun azad’s writtings, those were so dirty, immediately I told my younger brother and sister not to read those books. those were so dirty I almost puke when he describes so elaborately, how in Africa people cut their young girls clitoris (woman’s khatna), but I never ever thought that we should kill him slash him, but you people did it. bravo!
      there is a phrase in bangla-“aulpo biddya voyongkor”, and without proper evidence and knowledge, so don’t assume yourself as a pondit, don’t just put a label on my theory and writings, if you dare to discard my opinion, do it by reasoning,
      one day a man came to Einstein and tell that, a book has been published, and its name was, “100 writers against Einstein’s theory of general relativity” , he smiled and said if I’m wrong one writer would be enough, so why they need 100 writers!
      before write something harsh, be sure first, then try not with chapati, but a pen to answer.
      any way I won’t bother to write you, its fucking waste of my time. —-Be a good
      shossho khetro’ , because he bought you with mohor, Honestly I feel so pity for you.

  • probirbidhan 19:21 on May 31, 2015 Permalink |
    Tags: Iraq, IS, Islamic state, militancy,   

    আইএস-এর কাছে অল্পবয়সি পবিত্র-যোনির চাহিদা একেবারে তুঙ্গে! 

    মেয়েদের রেট চার্ট বানিয়ে ফেলেছে এক ইসলামি জঙ্গি সংগঠন আইএস। যৌন ক্রীতদাসীর বাজার বসাচ্ছে হপ্তায় দু’তিন দিন। সবচেয়ে বেশি দাম এক থেকে ন’বছরের মেয়েদের।

    সঞ্চারী মুখোপাধ্যায়

    মিশেল ওবামার দাম ৪০ মার্কিন ডলার। এর বেশি হতেই পারে না। সুন্দরীদের ভিড়ে অমন মহিলার দাম ৪০ ডলার, এই অনেক।— বলে কী! আমেরিকার ফার্স্ট লেডি-র দাম ধার্য হয়েছে! পশ্চিম এশিয়ার আইএসআইএস (ISIS) জঙ্গিগোষ্ঠী, এখন আইএস নামে বিশ্ব-কুখ্যাত, তা-ই দাবি করছে। সম্প্রতি তাদের পত্রিকা ‘দাবিক’-এ একটি লেখায় বলা হল, তাদের বাজারে যে মেয়েরা বিক্কিরি হচ্ছে, তাদের রূপের পাশে মিশেলের দাম ৪০ ডলার ছাড়াবে না।
    বাজার মানে? মেয়েদের বাজার? আজ্ঞে হ্যাঁ, ইরাকের মসুল শহরে, সিরিয়ার রাক্কা শহরে বসছে যৌন-ক্রীতদাসী বাজার। সেই মেয়েদের যেমন খুশি, যখন খুশি ভোগ বা ধর্ষণ করা যায়, যৌন-আদেশ করা যায়, সে আদেশ না মানতে চাইলে পেল্লায় মেরে গায়ের ছালচামড়া ছাড়িয়ে নেওয়া যায়, পালাতে চাইলে গুলি করে মেরেও ফেলা যায়।
    মিশেল ওবামাকে নিয়ে ওই কদর্য কথাটি লিখেছিল যে, সে এক জন মহিলাই। এক জেহাদির স্ত্রী। ওই ‘৪০ ডলার’ দামটা তার মাথায় এল কী করে? কেন, রেট-চার্ট আছে তো! কোন ধরনের মেয়েদের কত দাম, একেবারে পষ্টাপষ্টি বলে দেওয়া আছে! যেমন রোলের দোকানে এগ রোল মাটন রোল চিকেন রোলের দাম বাইরেই টাঙানো থাকে! চূড়ান্ত অশিক্ষা আর ঔদ্ধত্য মিশিয়ে, এই ইসলামিক স্টেট (হ্যাঁ, এই সংগঠন নিজেদের এখন ‘স্টেট’ বলতে ভালবাসে)— যারা কিনা ইরাক, সিরিয়া আর ইয়েমেন-এর অনেকখানি জায়গা দখল করে নিয়ে ‘ইসলামি সাম্রাজ্য’ বিস্তার করতে চাইছে, আর প্রথম বিশ্বের তাবড় উন্নত, সভ্য, শিক্ষিত দেশ থেকে ফুসলে আনছে তরুণ-তরুণী জঙ্গি, আর সারা বিশ্বের মাস্তান দেশগুলোর ঘুম ও ঘিলু শুষে নিয়েছে— তাদের ‘সাম্রাজ্যে’ দাপিয়ে বুক ফুলিয়ে চালু করে দিচ্ছে খোলা বাজারে মেয়ে কেনাবেচার দুরন্ত ব্যবসা।
    মেয়েও তো অঢেল, অভাব নেই। আইএস জঙ্গিরা ইরাকের উত্তর প্রান্ত অধিকার করে সেখানকার সংখ্যালঘু ইয়েজিদি ও খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের লোকজনকে বন্দি করছে। তার পর মেয়েদের তাদের পরিবারের থেকে আলাদা করে রাখছে অন্য জায়গায়। তার পর বিক্রি করছে চড়া দামে। মেয়েগুলিকে ভোগ করছে একাধিক আইএস জঙ্গি সৈন্য বা সদস্য। বিদেশি জঙ্গিদের হক আগে। কারণ তাদের ফুসলে আনার জন্য অনেক বেশি চেষ্টা করতে হয়েছে।
    ‘ইয়েজিদি ও খ্রিস্টান মেয়েদের তুলে নিয়ে গিয়ে যৌন ক্রীতদাসী করলে তাতে পাপ তো নেই-ই, বরং পুণ্য আছে, কারণ এই সম্প্রদায়ের মানুষরা ইসলাম অমান্য করে অন্য ধর্ম পালন করেছে। ব্যস, তাদের তো উচিত শিক্ষা দিতেই হবে।’ ইন্টারনেটের একটি সাইটে আইএস এ রকম ভূরি ভূরি যুক্তি দিয়েছে। বলেছে, ‘যে সব পরিবার কাফের, তাদের বন্দি করে বা অধিকার করে দাস বানানো এবং তাদের মেয়েদের রক্ষিতা করার অধিকার শরিয়তে দেওয়া রয়েছে।’
    ওয়েবসাইট আরও বলছে, ‘আমরা খবর পেয়েছি, নারী এবং গরুর বাজারে চাহিদা বিস্তর কমে গেছে, এবং এর ফলে ইসলামিক স্টেট-এর রাজস্বে টান পড়বে, টান পড়বে মুজাহিদিনদের যুদ্ধের রসদেও। এই অবস্থায় আমরা (বাজারদরের) কিছু পরিবর্তন করছি। ইয়েজিদি ও খ্রিস্টান মেয়েদের দাম নীচে দেওয়া হল।’
    ১ থেকে ৯ বছরের মেয়েদের দাম ১৭২ মার্কিন ডলার, ১০ থেকে ২০ বছরের মেয়েদের দাম ১২৯ ডলার, ২০ থেকে ৩০ বছরের মেয়েদের দাম ৮৬ ডলার, ৩০ থেকে ৪০ বছরের মেয়েদের দাম ৫৬ ডলার, আর ৫০ বছরের ওপরের মেয়েদের দাম ৪৩ ডলার। এক জন তিনটির বেশি যৌন ক্রীতদাসী রাখতে পারবে না। শুধু বিদেশি জঙ্গিদের ক্ষেত্রে এবং তুরস্ক ও পারস্য উপসাগরীয় দেশগুলি থেকে যারা জঙ্গি হয়েছে তাদের ক্ষেত্রে ছাড় রয়েছে। তারা তিনের বেশি ক্রীতদাসী রাখতে পারে।
    এক বছরের মেয়ে? তিন বছরের মেয়ে? — এরা যৌন ক্রীতদাসী?! এদের শরীর থেকে কী যৌন তৃপ্তি আদায় করে নেবে এরা? কতখানি অমানুষ হলে এদের ওপর চড়াও হওয়া যায়! অনেকে বলছেন, না না, এদের তখনই ভোগ করা হয় না, নাইয়ে খাইয়ে ডাগরডোগর করে বড় করে বেচে দেওয়া হয় অন্যের ভোগের জন্য। এদের কেনা হচ্ছে ‘বিনিয়োগ’ হিসেবে। আর, বেশি বছর তো অপেক্ষা করতে হবে না। কারণ, অল্পবয়সি পবিত্র-যোনির চাহিদা একেবারে তুঙ্গে!
    এই অল্প-বয়সটা ঠিক কত বয়স হতে পারে? তারও উত্তর দিয়েছে আইএস তাদের ইস্তাহারে। প্রশ্ন আছে— যে মেয়ে ঋতুমতী হয়নি তার সঙ্গে সঙ্গম কি উচিত? উত্তরে বলা হয়েছে— যদি সেই মেয়ের শরীর সঙ্গমের জন্য প্রস্তুত থাকে, তবে ঋতুমতী না হলেও তাকে ভোগ করা যায়। যেমন, পঞ্চাশ বছরের এক জন জঙ্গি আট বছরের ফাদিদাকে কিনে নিয়ে গিয়েছিল, বলেছিল তাকে মেয়ের মতো রাখবে। সেই লোকটিই রাতে ফাদিদাকে খাইয়েদাইয়ে হাত ধরে শুতে নিয়ে গিয়েছিল নিজের ঘরে। কী কী যেন করছিল, ফাদিদার খুব কষ্ট হচ্ছিল। সকাল বেলায় ফাদিদা দেখে তার উরু বেয়ে গড়িয়ে পড়ছে রক্ত, আর খুব কষ্ট সারা শরীরে। তার পর প্রায়ই এই যন্ত্রণা তাকে সইতে হয়েছে। দগ্ধে দগ্ধে বেশ কিছু দিন কেটেছে। তার পর এক দিন সে উদ্দেশ্যহীন ভাবে হাঁটতে শুরু করে। রাক্কা শহরের কোনও এক দরজায় ঘা দিয়ে আশ্রয় চায়। সেই পরিবার তাকে আশ্রয় দিলেও ফাদিদার পরিবারের কাছ থেকে মোটা টাকা নিয়ে তবে ছেড়েছে তাকে। সে এখন একটা ক্যাম্পে থাকে। চিকিৎসা চলছে। প্রথম যখন পরিবারের লোক তাকে পায়, আর ক্যাম্পে নিয়ে গিয়ে স্বেচ্ছাসেবীদের সাহায্য চায়, তখন টানা দু’দিন আবোলতাবোল বকে গিয়েছিল ফাদিদা। তার পর দু’মাস একটাও কথা বলেনি।
    কিংবা ওই যে ন’বছরের মেয়েটা, যাকে বেশ কিছু দিন ধরে দশ জন জঙ্গি লাগাতার ধর্ষণ করেছে, সে এখন অন্তঃসত্ত্বা। তাকে উদ্ধার করা হয়েছে বটে, কিন্তু এই নিষ্ঠুর সত্যিটা সবাই নিশ্চিত করেই জানে যে, এক দিন কিতকিত খেলার বদলে বাচ্চার জন্ম দিতে গিয়ে সে মরে যাবে। এই অবস্থায় তাকে বাঁচানো সম্ভব নয়। গর্ভপাত করাতে গেলেও মরবে, বাচ্চার জন্ম দিতে গেলেও মরবে।
    আর এই সব মেয়েদের লুটেপুটে ভোগ করাই নাকি চূড়ান্ত আনন্দের। নানা বয়সের জঙ্গিদের এটাই মত। বয়সে যত কচি, ভোগে তত আনন্দ— ‘আরে একটু বড় হয়ে গেলেই তো মেয়েরা বুঝতে পারে, রেপ কাকে বলে, যৌন অত্যাচার কাকে বলে। কিন্তু ছোট্ট মেয়েগুলো তো বুঝতেও পারে না। আর সেটাই আসলি মজা। আহাহা, ওই নিষ্পাপ ইনোসেন্সটাই তো কিক দেয়।’
    তা হলে এ তো কেবল বিচ্ছিন্ন কয়েক জনের মানসিক বিকৃতির ঘটনা নয়। এ তো শ’য়ে শ’য়ে ছেলের চাহিদা, যা জেহাদের নামে পূরণ করছে আইএস। ঠান্ডা মাথায় মেয়েদের তুলে নিয়ে এসে ঠুসে দিচ্ছে বদ্ধ হলঘরে বা কোনও উচ্চপদস্থ জঙ্গির ডেরায় কিংবা পরিত্যক্ত কারখানা বা পতিতালয়ে। তার পর তাদের নিলাম হচ্ছে। অনেক সময়ে নিলামের বদলে, বসে ‘রেপ লটারি’র আসর। ওই ওই আট বছরের মেয়েটা, আর ও দিকের কোনায় বছর কুড়ির যৌবনবতী, আর ডান দিকের তিন নম্বর জানলার নিচে ওই বেশি তেজ দেখানো ডাগর মেয়েটা? নিয়ে আয় এদের। বাকিগুলো ভয়ে কাঁপুক, কবে ওদের নম্বর উঠবে।
    যারা ‘নির্বাচিত’ হল, তাদের নিদান আসে স্নান করার। বলি দেওয়ার আগে যেমন স্নান করানোর রেওয়াজ আছে বহু ধর্মে। মেয়েদের স্নান করতে বললেই তাদের বুক ঢিপঢিপ, পেট গুড়গুড়। এই বার নেমে আসবে সেই ভয়ংকর খাঁড়া। অমান্য করেছ কী মার! চাবুক, লাঠি, চুল ধরে টেনে হিঁচড়ে নিয়ে যাওয়া, দেওয়ালে মাথা ঠুকে দেওয়া। এ সবের পর ব্যথা, জমাট রক্ত, খিদে আর তেষ্টা নিয়ে অন্ধকার কুঠুরিতে পড়ে থাকা। একটু ভাল হলেই ফের স্নান।
    জালিলা, বছর কুড়ির তরুণী, অনেক কাকুতি-মিনতি করেছিল ছেড়ে দেওয়ার জন্য। সাত জন ভোগ করার পর একটু নিস্তার মিলেছিল তার। আবার রাসিদা যখন জানল যে আজ তার পালা, তখন সে মরিয়া, কী করে পালাবে। না পারলে অন্তত মরে তো যাওয়াই যায়। স্নান করতে গিয়ে খুঁজে পেল একটা শিশি, তাতে বেশ কিছুটা উগ্র গন্ধের তরল। আঁচ করল, নিশ্চয়ই বিষ। জলে মিশিয়ে সে আর বাকি মেয়েরা গলায় ঢেলে দিল। কিন্তু এমনই ভাগ্য যে অসুস্থ হয়ে পড়লেও কেউ মরল না। ভেজাল বিষও বিট্রে করল।
    এগারো বছরের জামার কিন্তু মরতে পেরেছিল। গলায় ওড়নার ফাঁস লাগিয়ে বাথরুমে গিয়ে কোনও মতে ঝুলে পড়েছিল। অবশ্য তার আগে কয়েক জন জঙ্গি তাকে বেশ করে ভোগ করে নিয়েছিল। তাদের পয়সা পুরোটা জলে যায়নি। ওয়াফা নামের এক তরুণী অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল-কে জানিয়েছে, সে আর তার বোন এক দিন রাতে দুজনে গলায় ওড়না জড়িয়ে একে অন্যের ওড়না ধরে টানছিল। জীবনের শেষ শক্তি জড়ো করে। কিন্তু ঘরের অন্য মেয়েরা ঘুম থেকে উঠে পড়ায় তাদের আর মরা হয়নি। এর পর মাসখানেক দুই বোনই আর কথা বলতে পারেনি।
    জয়নাব অবশ্য পালিয়ে বেঁচেছিল। বাঁচার আগে সাত বার আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল। তিন বার হাতের শিরা কেটে, আর বেশ কয়েক বার গলার ফাঁস দিয়ে। পারেনি। প্রত্যেক বার বাঁচিয়ে নিয়েছিল ওর প্রভুরা। আর তার পর মার কাকে বলে! কালশিটের রং দেখে বোধ হয় কালশিটে নিজেও লজ্জা পেয়েছিল। প্রথম বার পালানোর পর, প্রভু বেচে দিয়েছিল এক জন লেবাননের লোককে। সেখান থেকে পালানোর চেষ্টা করেছিল বলে ফের ফেরত এসেছিল ইরাকে। আবার পালাতে গিয়েছিল, তখন দু’দিন অন্ধকার ঘরে বন্দি ছিল। শেষরক্ষা হয়নি। এর পর স্নান শুরু হয় বার বার, বার বার। তবু পালাতে গিয়েছিল। তখন ওকে নিয়ে গিয়ে রাখা হয়েছিল ধু-ধু মরুভূমির মধ্যে একটা ট্রেলারে। সেখানে গিয়ে জয়নাব দেখে, আরও সাত জন মেয়ে রয়েছে। তারাও যৌন ক্রীতদাসী। কিন্তু কাজ করতে হয় সবই। কাপড়-জামা কাচা, ট্রেলার পরিষ্কার রাখা, খাবার তৈরি করা। আর ‘উঃ’ বললেই পেটানি খাওয়া— সেটাও একটা নিত্য কাজ।
    এক দিন রাতে পালাতে গিয়েছিল জয়নাব। এমন মার জুটেছিল যে কথা বলতে পারেনি সাত দিন। কিন্তু তক্কে তক্কে ছিল। এক রাতে যখন জয়নাবের সঙ্গীদের দুজনকে নিয়ে ব্যস্ত ছিল কমান্ডাররা, তখন ট্রেলার থেকে নিঃশব্দে একটা ফালি দিয়ে স্লিপ করে নেমে যায় বাকি ছ’জন। হাঁটতে থাকে মরুভূমি ধরে। কোন দিকে, কোথায় যাচ্ছে, কেউ জানে না। চার-পাঁচ দিন খাবার ছাড়া, জল ছাড়া হাঁটার পর, একটা শহরে এসে একটা দরজায় ধাক্কা দেয় জয়নাব। আশ্রয় দিতে রাজি হয়নি গৃহকর্তা। কিন্তু তার চালাক ছেলে রাজি ছিল, এই মওকায় কিছু যদি কামিয়ে নেওয়া যায়। পেরেওছিল। ছ’টা মেয়ের বাড়ির লোকের কাছ থেকে মোটা টাকা নিয়ে তবে ছেড়েছিল মেয়েগুলোকে। তারা এখন বিভিন্ন ক্যাম্পে। জয়নাব অনেক পরে জানতে পেরেছিল, বাকি দুটো মেয়ে, সে দিন যারা ট্রেলারে জঙ্গিদের ভোগের বস্তু ছিল, পরের রাতে চেষ্টা করেছিল পালাবার। দুজনকেই মাথায় গুলি করে মেরে দেয় ওই বীরপুঙ্গবরা।
    এখনও আইএস জঙ্গিদের কাছে প্রায় হাজার তিনেক ইয়েজিদি আর খ্রিস্টান মেয়ে রয়েছে। সে সংখ্যা আরও বাড়বে। মেয়েদের এই দশা দেখে যদি কেউ ভাবেন, ‘দুর্ভাগ্যজনক, কিন্তু কী করা যাবে, যে কোনও বড় আগ্রাসনের কো-ল্যাটারাল ড্যামেজ তো আছেই’, তা হলে তিনি ভুল করছেন। এ শুধু অসহায় মেয়েদের বাগে পেয়ে যৌন আনন্দ ভোগ করার ব্যাপার নয়, এখানে আছে একটা গোটা বাজার চালাবার আস্ত ব্লুপ্রিন্ট! ব্যবসা বজায় রাখতে গেলে ক্রমাগত সাপ্লাই থাকতে হবে। সে জন্য মেয়েদের তুলে আনতে হবে রোজ রোজ। তার পর, কত জন পালাতে পারে, কাকে পিটিয়ে শিক্ষা দিতে হবে আর কাকে একদম মেরে ফেলতে হবে, ডিমান্ড অনুযায়ী কাকে কোন দামে বেচা হবে— তারও পরিষ্কার আইডিয়া থাকতে হবে। গোছালো ভাবে ব্যবসা না ফাঁদলে, লাভ কমে যাবে। পয়সা জোগানে টান পড়লে জেহাদি পুষবে কী করে, আর যুদ্ধই বা করবে কী করে? ‌তাই মেয়েরা এখানে যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার কাঁচামাল। পুঁজি।
    গ্যাস চেম্বার, আবু ঘ্রাইব, কঙ্গো-রেপ, দারফুর-রেপ দেখেছে বিশ্ব। এ বার এটা একটা নতুন মডেল। এরা খেল দেখাক। আর আমরা— দুর্বল, পিতপিতে, সভ্য মানুষ— নতজানু হয়ে ক্ষমা, শান্তি আর মহানুভবতার কাছে গিড়গিড়াই।

     
  • probirbidhan 21:37 on May 15, 2015 Permalink |
    Tags: , , militancy,   

    ব্লগার খুন: এরপর কে? 

    সরকারের কাছে দেওয়া কথিত ‘নাস্তিক তালিকা’ অনুযায়ী একের পর এক ব্লগারকে হত্যা করা হচ্ছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তালিকাটি থাকলেও ব্লগারদের নিরাপত্তায় কোনো ব্যবস্থা নেয়নি সরকার।
    তালিকায় থাকা অনেকেই দেশ ছেড়ে চলে গেছেন। যাঁরা যাননি, তাঁরা আছেন আতঙ্কে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে এখন একটাই প্রশ্ন—এরপর কে?

    ব্লগারদের জন্য ‘মোটেই নিরাপদ নয়’ বাংলাদেশ

    স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালের ৫ মে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের ঢাকা অবরোধ কর্মসূচির আগে ব্লগারদের ওই তালিকা করা হয়েছিল। হেফাজতে ইসলামের সঙ্গে দর-কষাকষির অংশ হিসেবে ১৩ মার্চ সরকার নয় সদস্যের একটি কমিটি করে দেয়। কমিটিতে আইন, তথ্য এবং বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরাও ছিলেন। সেই কমিটির নাম ছিল ‘পবিত্র ইসলাম ধর্ম এবং মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্যকারী ব্লগার ও ফেসবুক ব্যবহারকারীদের খুঁজে বের করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ কমিটি’। কমিটির প্রধান ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রয়াত অতিরিক্ত সচিব মাইনউদ্দিন খন্দকার। কমিটি ‘আপত্তিকর’ মন্তব্যকারীদের বিষয়ে তথ্য দিতে একটি ই-মেইলও খুলেছিল।
    কমিটি এপ্রিল মাস পর্যন্ত চারটি বৈঠক করে। কমিটি ‘আপত্তিকর’ মন্তব্যকারীর নাম আহ্বান করলে বিভিন্ন মহল থেকে সব মিলিয়ে ৮৪ জন ব্লগারের একটি তালিকা দেওয়া হয়। সেই তালিকা থেকে প্রাথমিক পর্যায়ে ১০ জন ব্লগারের একটি তালিকা করে কমিটি তা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে দেয়। সেই তালিকা থেকে হেফাজতের সমাবেশের ঠিক আগে চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।
    স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র আরও জানায়, ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিত কমিটির তৃতীয় বৈঠকে আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত নামের একটি সংগঠন ‘নাস্তিকদের তালিকা’ শিরোনামে ৫৬ জনের একটি তালিকা দেয়। এই ৫৬ জনের মধ্যে আবার ২৭ জনকে আলাদা করা হয়। এই ২৭ জনের প্রত্যেকের আলাদা প্রোফাইল তৈরি করে তা কমিটির কাছে দেওয়া হয়। সেখানে ২৭ জনের ছবি ছাড়াও প্রত্যেকের পরিচিতি, ঠিকানা এবং লেখার বিভিন্ন অংশ তুলে ধরা হয়।
    জামায়াত-শিবির পরিচালিত একটি ফেসবুক গ্রুপের নাম ‘বাঁশের কেল্লা’। একই সময়ে সেখানে ৮৪ ব্লগারের একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়। ওই তালিকায় আগের ৫৬ জনের নামও ছিল।
    এসব তালিকা থেকেই মূলত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কমিটি ১০ জনের প্রথম তালিকাটি করেছিল। তালিকা তৈরি করে চার ব্লগারকে গ্রেপ্তারের পরও হেফাজতে ইসলাম পূর্বনির্ধারিত ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি ডেকে ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। পরে সরকারও তা শক্ত হাতে দমন করে। এতে হেফাজতের সঙ্গে সরকারের আর দর-কষাকষির প্রয়োজন হয়নি। ফলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কমিটি ৫ মের পর আর কোনো বৈঠকও করেনি, তালিকাও হয়নি। গ্রেপ্তারকৃত ব্লগাররা পরে জামিন পেলেও এখনো মামলা চলছে।
    স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে দেওয়া আনজুমানে আল বাইয়্যিনাতের তালিকায় রাজিব হায়দার ওরফে শোভনের নাম ছিল। ওই তালিকা দেওয়ার আগেই, ১৫ ফেব্রুয়ারি তাঁকে হত্যা করা হয়। এরও আগে একই বছরের ১৪ জানুয়ারি তালিকায় নাম থাকা আরেক ব্লগার আসিফ মহিউদ্দিনকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। এর পরে চলতি বছরের ২৬ ফেব্রুয়ারি তালিকায় থাকা মার্কিনপ্রবাসী অভিজিৎ রায়কে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।
    এরপর ঠিক একই কায়দায় হত্যা করা হয় মূলত ফেসবুকে লেখালেখি করা ওয়াশিকুর রহমানকে। তবে কোনো তালিকাতেই ওয়াশিকুরের নাম ছিল না। সবশেষে ১২ মে সিলেটে হত্যা করা হয় ব্লগার অনন্ত বিজয় দাশকে। আনজুমানে আল বাইয়্যিনাতের তালিকায় তাঁর নামটি ছিল।
    সামগ্রিক বিষয়ে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেছেন, তালিকার বিষয়টি তিনি জানতেন না। জেনে ব্যবস্থা নেবেন।
    খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, তালিকায় থাকা অধিকাংশ ব্লগারই ইতিমধ্যে দেশ ছেড়ে চলে গেছেন। পর পর তিনজন খুন হওয়ার পরও সরকারের পক্ষ থেকে অন্যদের ক্ষেত্রে কোনো বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। আবার তালিকা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, এখানে এমন অনেকের নাম আছে, যাঁরা নিয়মিত ব্লগে লেখালেখি করলেও ধর্ম নিয়ে কখনো কিছু লেখেননি। কিন্তু ২০১৩ সালে সরকার কমিটি করার পর অতি উৎসাহীরা তালিকা বড় করার জন্য তাঁদের নামও দিয়েছিল। আবার ব্যক্তিগত রেষারেষির কারণেও কিছু নাম তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল।

    জঙ্গীপ্রেমী যুগান্তর পত্রিকা তো ব্লগারদের লিস্ট ছাপিয়ে দিয়ে তাদের খুন হবার রাস্তা সহজ করেছে। জানা গেছে, ২০১৩ সালের ৩১ মার্চ ব্লগারদের তালিকা দেয় হেফাজতে ইসলাম। 

     
  • probirbidhan 20:07 on November 18, 2012 Permalink |
    Tags: attack on police, , , , , militancy, state religion   

    BNP, Jamaat slam Hasina for Shariah remarks 

    The Daily Star November 18, 2012

    Two BNP leaders yesterday criticised Prime Minister Sheikh Hasina for threatening to implement sharia and alleged that the government intended to create instability in the country by misleading the people.

    Speaking separately at two programmes, BNP Standing Committee Member Khandaker Mosharraf Hossain and BNP acting general secretary Mirza Fakhrul Islam Alamgir said it was ironic to listen to the leader of the Awami League talk about implementing sharia.

    They said the talk on sharia was nothing but an attempt to confuse people.

    প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য নিয়ে আলোচনা

    Shibir men go berserk in Ctg

    Jamaat men clash with cops at Jatrabari

    ‘US advice will cheer war criminals’

    ঐকমত্য হলে জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ হতে পারে

    পাকিস্তানপ্রেমী জামায়াত কেন বাংলাদেশে রাজনীতি করে?

    জামায়াতের ইসলাম, রাজনীতি ও আমাদের দূর্বলতা

    জামায়াত-শিবিরের ‘নৈরাজ্যের’ বিরুদ্ধে সভা-সমাবেশ

    জামায়াত নেতার বাসায় ‘জঙ্গি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র’

    PM, home minister firm against Jamaat plot

    জামায়াতের রাজনীতির জবাবদিহি তাদের কাছে

    ধর্মভিত্তিক রাজনীতি সমস্যায় পরিণত হয়েছে, সংসদে প্রধানমন্ত্রী

    At a human chain in the capital, Mosharraf said the AL has always tried to enhance its image at home and abroad, by claiming to be a secular party.

    The programme was organised by Shadhinota Forum demanding to know the whereabouts of Ilias Ali, a missing BNP leader.

    Meanwhile, speaking at a programme marking the 36th death anniversary of Maulana Bhasani, organised by BNP, Tangail Unit, Fakhrul said the AL’s �double standard policy� has been shown through Hasina’s speech.

    While addressing a meeting of AL Central Working Committee at Gono Bhaban, on November 16, the Prime Minister, said those who had assaulted the police to hinder the war crimes trial could be tried �under the sharia law�.

    �The government knows how to deal with those who are attacking the police to save the war criminals. Besides, there are alternative means like sharia to try them,� Hasina said.

     

    PM speaks about Shariah law to stop Jamaat-Shibir violence

    The Daily Star November 17, 2012

    Prime Minister Sheikh Hasina yesterday said those attacking law enforcers and trying to hinder the war crimes trial could be tried under sharia.

    �The more excesses they do, the faster will be the war crimes trials. There will be no let-up in the trials,� she said.

    The government knows how to deal with those who are attacking police and out to save the war criminals. Besides, there are even alternative means like sharia and qiyas to try them, she said.

    The prime minister was addressing a meeting of the Awami League Central Working Committee at her Gono Bhaban residence.

    Hasina, also president of the ruling AL, said attacking police would bring no good for Jamaat-Shibir.

    Her comments follow a spate of attacks on the police by activists of Jamaat-e-Islami and its student body Islami Chhatra Shibir. The Islamist party has lately stepped up its demonstrations for a halt to the trials of its top brass on charges of war crimes.

    Contacted, noted jurist M Zahir said it would not be possible to try anyone under sharia [Islamic law] straight away. Those attacking the police could be tried under the traditional laws of the land.

    �If the trials have to be done under sharia, the Islamic law has to be passed by parliament,� Zahir told The Daily Star, adding that if any law was passed only to punish someone or some people, it would be considered a bad law.

    The prime minister in her speech also mentioned qiyas. According to Wikipedia, qiyas is the process of deductive analogy in which the teachings of the Hadith are compared and contrasted with those of the Quran, in order to apply a known injunction to a new circumstance and create a new injunction. Here the ruling of the Sunnah and the Quran may be used as a means to solve or provide a response to a new problem that may arise.

    At the ALCWC meet, Hasina said, in an indirect reference to the opposition, �They have plotted various conspiracies in their last-ditch effort to hinder the war crimes trials, and attacks on police across the country were parts of that plan.

    �So I call upon all, also the opposition leader, to refrain from trying to hinder the trials.�

    The prime minister observed the war crimes trial was the demand of the nation, especially the youths, and it must be held.

    Referring to the international crimes tribunals, she claimed that the tribunals were functioning transparently and there was hardly any instance in the world where so many opportunities had been given to the accused.

    She said the main opposition BNP enforced hartal on the day the verdict of the Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman killing case was announced. The verdict was delivered during the last Awami League-led government’s tenure, 1996-2001.

    �This time, I also want to say that these trials [war crimes trials] must also be held and none can prevent them,� she said.

    She said the nation was of warriors and they would never bow down to the defeated forces (Jamaat-Shibir).

    At the meeting yesterday, a coordination committee was formed for holding a grand alliance rally at Suhrawardy Udyan in the capital on December 16, Victory Day. Awami League leader Muhammad Nasim was made the convener of the committee.

    The Awami League chief also instructed party workers to prepare for the month-long celebrations in December.

    On the attack on minorities in Ramu of Cox’s Bazar on September 29-30, the prime minister said it had been staged to destroy the country’s communal harmony and people knew that very well.

    �This incident was unexpected�it was done in a planned way to create anarchy in the country. But fortunately, we managed to prevent it.�

    She criticised the opposition leader for visiting China and India before visiting Ramu, where she �only presented the victims with a speech of allegations against the government and nothing else�.

    The meeting yesterday also fixed December 29 for holding the party’s national council in Dhaka.

     
  • probirbidhan 15:38 on May 14, 2012 Permalink |
    Tags: Aizawl, , , , , Hmar Autonomous District Council, Hmar People's Convention-Democrats (HPC-D), , militancy, , Mizoram Home Minister R. Lalzirliana, , separatist, terrorist   

    Alert in Mizoram over security threat 

    Aizawl, May 14 (IANS)

    Security forces in Mizoram have stepped up vigil after an intelligence report indicated possible violence by the separatist outfit Hmar People’s Convention-Democrats (HPC-D) in the northeastern state, police said here Monday.

    Deputy Inspector General of Police (northern range) Zorammawia told reporters: ‘Security forces led by superintendents of police have been conducting flag marches in various parts of the mountainous state, bordering Myanmar and Bangladesh.’

    ‘We have asked all the police stations to remain vigilant over the prevailing situation, so that the tribal guerrillas do not create any violence or any kind of disturbances,’ he said.

    Official sources said they had received inputs that HPC-D cadres could indulge in violence.

    The HPC-D is a militant outfit operating mainly in Mizoram and neighbouring Manipur. It has been demanding a separate Hmar Autonomous District Council comprising Hmar tribal-inhabited areas in the north and north-eastern parts of Mizoram.

    The Hmar tribals live mostly in the mountains of south Manipur, parts of Mizoram, southern Assam and parts of Meghalaya and Tripura, besides the Chittagong Hill Tracts (CHT) of southeast Bangladesh. In 1987, the Hmars launched an insurgent movement, and signed a ceasefire with the government in 1992. Around 375 cadres of the outfit surrendered that year in Aizawl.

    The HPC-D was an offshoot of the Hmar People’s Convention, following discontents with the 1992 peace agreement.

    Mizoram Home Minister R. Lalzirliana said the purpose of the flag marches was to create confidence and maintain peaceful atmosphere and mutual trust among the people of the hilly and remote areas.

    Mizoram Chief Minister Lal Thanhawla recently informed the state assembly that peace negotiations with the HPC-D had run into a deadlock as the Manipur-based rebel group insisted on including a US citizen in its delegation in the talks with the state government – a proposal ‘unacceptable’ to the Mizoram government.

    ‘We had informed the state government’s stand on this to the central government,’ the chief minister said.

    State Home Secretary Lalmalsawma told reporters: ‘The HPC-D can include any Indian of their choice as one of the members in their delegation, but not any foreigners.’

    Lal Thanhawla also accused the HPC-D of violating a suspension of operation (SOO) agreement it had signed with the central government in 2007.

    ‘According to the agreement, the HPC-D was supposed to stop all kinds of violent activities. Instead, the underground group continued extortion rackets and abduction in northeastern parts of Mizoram,’ the Chief Minister added.

     
c
Compose new post
j
Next post/Next comment
k
Previous post/Previous comment
r
Reply
e
Edit
o
Show/Hide comments
t
Go to top
l
Go to login
h
Show/Hide help
shift + esc
Cancel